Campus Pata 24
ঢাকাMonday , 26 February 2024
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ক্যাম্পাস
  5. খেলাধুলা
  6. চাকরির খবর
  7. জাতীয়
  8. তথ্যপ্রযুক্তি
  9. বিনোদন
  10. ভ্রমণ
  11. মতামত
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. শিক্ষা জগৎ
  15. সারাদেশ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাত জেগে নফল ইবাদতের পর ফজর না পড়ার ক্ষতি

ডেস্ক রিপোর্ট
February 26, 2024 5:12 am
Link Copied!

শবে কদর, শবে বরাত ফজিলতপূর্ণ রাত। শবে কদরের ফজিলত সরাসরি কোরআনের মাধ্যমে সাব্যস্ত। শবে কদরের ফজিলত সরাসরি কোরআনে বর্ণিত না হলেও হাদিসের মাধ্যমে এ রাতের মাহাত্ম্য প্রমাণিত। এই রাতগুলোতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের মাঝে রাত জেগে নফল ইবাদতের ব্যাপক প্রবণতা দেখা যায়। মসজিদগুলো ঢল নামে মুসল্লিদের। অনেকেই নফল নামাজ, কোরআন তিলাওয়াত, জিকির-আজকারে সময় কাটিয়ে থাকেন।
এই রাতগুলো ছাড়াও সাপ্তাহিক শুক্রবার, দুই ঈদের রাত ফজিলতপূর্ণ। এ সম্পর্কে হজরত ইবনে ওমর রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু বলেন, ‘পাঁচটি রাত এমন আছে, যে রাতের দোয়া ফিরিয়ে দেওয়া হয় না। জুমার রাত, রজবের প্রথম রাত, শাবানের ১৪ তারিখ রাত, দুই ঈদের রাত। ’ (মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক, হাদিস, ৭৯২৭)
ওমর ইবনে আবদুল আজিজ রহিমাহুল্লাহ আদি ইবনে আরতাতের উদ্দেশ্যে লেখেন, ‘বছরের চারটি রাত তুমি অবশ্যই লক্ষ রাখবে। কেননা সেসব রাতে আল্লাহর রহমত বর্ষিত হয়—রজবের প্রথম রাত, শাবানের ১৪ তারিখ রাত, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার রাত। ’ (আত-তালখিসুল হাবির, ইবনে হাজার, ২/১৯১)
সাপ্তাহিক শুক্রবার, দুই ঈদের রাতে নফল ইবাদতের জন্য মসজিদে মানুষজনের খুব একটা আনাগোনা না থাকলেও শবে কদর, শবে বরাতে মসজিদে থাকে উপচে পড়া ভিড়। অনেকেই গভীর রাত পর্যন্ত নফল ইবাদত করেন। তরুণ-যুবকদের অনেকেই রাতভর ঘুরে বেড়ান। গভীর রাত পর্যন্ত জেগে অনেকেই রাতের শেষ প্রহরে ঘুমিয়ে পড়েন, ফজরের ফরজ নামাজ আদায়ে কোনো গুরুত্ব দেখা যায় না। 
ফজিলতপূর্ণ রাতে নফল ইবাদতের পর ফরজ নামাজ আদায় না করার বিষয়টি ভয়ংকর। কারণ, আল্লাহ তায়ালা যত ফরজ ইবাদত এবং নামাজের বিধান দিয়েছেন তিনি কেয়ামতের দিন তারই হিসাব নেবেন সর্বপ্রথম। নফল ইবাদত ফরজের ঘাটতি পূরণের কাজ দেবে। এক হাদিসে এসেছে, হজরত আবু হুরায়রা রা. বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ সা.-কে বলতে শুনেছি, কিয়ামতের দিন বান্দার সর্বপ্রথম হিসাব নেওয়া হবে তার সালাতের। যদি তার সালাতের হিসাব সঠিক হয় তাহলে সে সফলকাম হবে এবং নাজাত পাবে। আর যদি সালাত বিনষ্ট হয়ে যায় তাহলে সে বিফল ও ক্ষতিগ্রস্ত হবে।
যদি ফরজ সালাতে কিছু কমতি হয়, তাহলে আল্লাহ বলবেন, দেখো, আমার বান্দার কোনো নফল ইবাদত আছে কি না? তখন নফল দিয়ে ফরজের ঘাটতি পূরণ করা হবে। অতঃপর তার অন্য সব আমল সম্পর্কেও অনুরূপ করা হবে (যেমন : সালাত, সিয়াম, জাকাত, হজ ইত্যাদি)। (আবু দাউদ, হাদিস, ৮৬৪)
এই হাদিসটি নফল ইবাদত এবং নফল নামাজের ফজিলত সাব্যস্ত করে। একই সঙ্গে ফরজ ইবাদতে যত্নশীল এবং গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান জানায়। ফরজ ইবাদতে অবহেলাকারীকে আল্লাহ তায়ালা কঠিন শাস্তি দেবেন। এ বিষয়ে পবিত্র কোরআনে বর্ণিত হয়েছে, 
‘নবী ও হেদায়েতপ্রাপ্তদের পর এলো এমন এক অপদার্থ বংশধর, যারা নামাজ বিনষ্ট করল এবং প্রবৃত্তির পূজারি হলো। সুতরাং তারা ‘গাই’ নামক জাহান্নামের শাস্তি প্রত্যক্ষ করবে। তবে যারা এরপর তওবা করে নিয়েছে, ইমান এনেছে এবং নেক আমল করেছে তারাই তো জান্নাতে প্রবেশ করবে এবং তাদের প্রতি কোনো ধরনের জুলুম করা হবে না।’ (সুরা মারইয়াম, আয়াত, ৫৯-৬০)
কোরআনে কারিমের অন্য আয়াতে এসেছে, কেয়ামতের দিন জাহান্নামীদের জিজ্ঞাসা করা হবে— ‘কেন তোমরা সাকার নামক জাহান্নামে এলে? তারা বলবে, আমরা তো নামাজি ছিলাম না এবং আমরা মিসকিনদের খাবার দিতাম না; বরং আমরা সমালোচনাকারীদের সঙ্গে সমালোচনায় নিমগ্ন থাকতাম। এমনকি আমরা প্রতিদান দিবসকে (কেয়ামত) অস্বীকার করতাম। আর এভাবেই হঠাৎ আমাদের মৃত্যু এসে গেল।’ (সুরা মুদ্দাসসির, আয়াত, ৩৮-৪৭)
কোরআনের হুঁশিয়ারির সঙ্গে সঙ্গে হাদিসেও ফরজ নামাজ তরককে কঠিন চোখে দেখা হয়েছে। এবং একে কাফেরদের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে। আল্লাহর রাসূল সা. ইরশাদ করেন, ‘কোনো ব্যক্তি এবং কুফর ও শিরকের মধ্যে ব্যবধান শুধু নামাজ না পড়া। যে নামাজ ছেড়ে দিল সে কাফের হয়ে গেল (কাফেরের মতো কাজ করল)।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস. ৮২)
অন্য হাদিসে আল্লাহর রাসূল সা. ইরশাদ করেন, ‘আমাদের ও কাফেরদের মধ্যে ব্যবধান শুধু নামাজের। যে নামাজ ত্যাগ করল সে কাফের হয়ে গেল।’ (তিরমিজি, হাদিস, ২৬২১)
আল্লাহ তায়ালা সবাইকে নফলের সঙ্গে ফরজ ইবাদত পালন এবং ফরজের গুরুত্ব বোঝার তাওফিক দান করুন। আমিন।



শাকিল/সাএ

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করা হয়। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো। বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।